নৌকার স্থলে বাঁশের সাঁকো

প্রকাশিতঃ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ আপডেটঃ ১১:২৬ অপরাহ্ণ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদী নাব্য হারিয়ে এখন নালায় পরিণত হওয়ার উপক্রম। কালের চক্রে নাব্য হারিয়ে এগুলো মরা খালে পরিণত হয়েছে। সেখানে এখন ধু-ধু বালুচর। এমন অবস্থায় নদী পারাপারে নৌকার স্থান দখল করে নিয়েছে বাঁশের সাঁকো।

গ্রীষ্মকাল আসতে না আসতেই নদী শুকিয়ে গেছে। এ ছাড়া নদীর গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় অসংখ্য খালের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে নৌকা চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নদী পারাপারে বাঁশের সাঁকো তৈরি করেছে এলাকাবাসী। নিজেদের উদ্যোগে গড়া এই বাঁশের সাঁকো দিয়ে স্থানীয়রা অতিকষ্টে এখন যোগাযোগ রক্ষা করছেন।

নাব্য সংকটের কারণে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শহর হতে প্রায় ১০ রুটের নৌ চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁটে এবং বাঁশের সাঁকো দিয়ে তিস্তা নদী পাড়ি দিচ্ছেন উপজেলার তারাপুর, বেলকা, হরিপুর ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। হরিপুর-কাশিম বাজার থেকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শহরে পৌঁছতে প্রথমে প্রায় ৪ থেকে ৫ কিলোমিটার রাস্তা পাড়ি দিতে হয়। এরপর তিস্তার সাঁকো পাড় হয়ে ধু-ধু বালু চর পায়ে হেটে অতিক্রম করতে হয়। এতে অতিরিক্ত সময় লেগে যায় প্রায় ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা। অথচ নদীতে পর্যাপ্ত পানি থাকলে এই পথ পাড়ি দিতে সময় লাগে মাত্র আধা ঘণ্টা।

স্থানীয়দের মতে, নদী খনন এবং ড্রেজিং না করায় নদীর গতিপথের পরিবর্তন হয়েছে। তার ফলেই নদীর এই করুণ দশা।

তোফায়েল হোসেন জাকির, সুন্দরগঞ্জ, গাইবান্ধা (পরিবর্তন ডটকম ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৬)